অতিথির স্মৃতি শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। গদ্য বাংলা ১ম পত্র এস এস সি

অতিথির স্মৃতি গল্পটি শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় লিখেছেন। এখানে অতিথি বলতে কবি একটি পোষা কুকুর কে বুঝিয়েছেন। যে কুকুরটি লেখকের কাছে একজন অতিথি হিসেবে পরিচিত ছিলেন। দেওঘরে থেকে লেখক অতিথিকে নিয়ে গল্প টি লিখেছেন। দেওঘরের স্মৃতি’ গল্পটির নাম পাল্টে এবং ঈষৎ পরিমার্জনা করে এখানে ‘অতিথির স্মৃতি হিসেবে সংকলন করা হয়েছে।  সম্পূর্ণ গল্পটি নিচে দেওয়া আছে। তাই নিচে থেকে পড়ে নিন।

অতিথির স্মৃতি

চিকিৎসকের আদেশে দেওঘরে এসেছিলাম বায়ু পরিবর্তনের জন্যে। বায়ু পরিবর্তনে সাধারণত যা হয়, সেও লােকে জানে, আবার আসেও। আমিও এসেছি। প্রাচীর ঘেরা বাগানের মধ্যে একটা বড় বাড়িতে থাকি। রাত্রি তিনটে থেকে কাছে কোথাও একজন গলাভাঙা একঘেয়ে সুরে ভজন শুরু করে, ঘুম ভেঙে যায়, দোর খুলে বারান্দায় এসে বসি। ধীরে ধীরে রাত্রি শেষ হয়ে আসে- পাখিদের আনাগােনা শুরু হয়। দেখতাম ওদের মধ্যে সবচেয়ে ভােরে ওঠে দোয়েল।

অন্ধকার শেষ না হতেই তাদের গান আরম্ভ হয়, তারপরে একটি দুটি করে আসতে থাকে বুলবুলি, শ্যামা, শালিক, টুনটুনি-পাশের বাড়ির আমগাছে, এ বাড়ির বকুল-কুঞ্জে, পথের ধারের অশ্বথগাছের মাথায় সকলকে চোখে দেখতে পেতাম না, কিন্তু প্রতিদিন ডাক শােনার অভ্যাসে মনে হতাে যেন ওদের প্রত্যেককেই চিনি। হলদে রঙের একজোড়া বেনে-বৌ পাখি একটু দেরি করে আসত।

প্রাচীরের ধারের ইউক্যালিপটাস গাছের সবচেয়ে উঁচু ডালটায় বসে তারা প্রত্যহ হাজিরা হেঁকে যেত। হঠাৎ কী জানি কেন দিন-দুই এলাে না দেখে ব্যস্ত হয়ে উঠলাম, কেউ ধরলে না তাে? এদেশে ব্যাধের অভাব নেই, পাখি চালান দেওয়াই তাদের ব্যবসা কিন্তু তিন দিনের দিন আবার দুটিকে ফিরে আসতে দেখে মনে হলাে যেন সত্যিকার একটা ভাবনা ঘুচে গেল।

এমনি করে সকাল কাটে। বিকালে গেটের বাইরে পথের ধারে এসে বসি। নিজের সামর্থ্য নেই বেড়াবার, যাদের আছে তাদের প্রতি চেয়ে চেয়ে দেখি। দেখতাম মধ্যবিত্ত গৃহস্থের ঘরে পীড়িতদের মধ্যে মেয়েদের সংখ্যাই ঢের বেশি। প্রথমেই যেত পা ফুলে-ফুলাে অল্পবয়সী একদল মেয়ে। বুঝতাম এরা বেরিবেরির আসামি। ফোলা পায়ের লজ্জা ঢাকতে বেচারাদের কত না যত্ন। মােজা পরার দিন নয়, গরম পড়েছে, তবু দেখি কারও পায়ে আঁট করে মােজা পরা।

কেউ বা দেখলাম মাটি পর্যন্ত লুটিয়ে কাপড় পরেছে সেটা পথ চলার বিঘ্ন, তবু, কৌতুহলী লােকচক্ষু থেকে তারা বিকৃতিটা আড়াল রাখতে চায়। আর সবচেয়ে দুঃখ হতাে আমার একটি দরিদ্র ঘরের মেয়েকে দেখে। সে একলা যেত। সঙ্গে আত্মীয়-স্বজন নেই, শুধু তিনটি ছােট ছােট ছেলেমেয়ে। বয়স বােধ করি চব্বিশ-পঁচিশ, কিন্তু দেহ যেমন শীর্ণ, মুখ তেমনি পাণ্ডুর-কোথাও যেন এতটুকু রক্ত নেই। শক্তি নেই নিজের দেহটাকে টানবার, সবচেয়ে ছােট ছেলেটি তার কোলে। সে ভাে আর হাঁটতে পারে না অথচ, ফিরে আসবারও ঠাই নেই? কী ক্লান্তই না মেয়েটির চোখের চাহনি।

সেদিন সন্ধ্যার তখনও দেরি আছে, দেখি জনকয়েক বৃদ্ধ ব্যক্তি ক্ষুধা হরণের কর্তব্যটা সমাধা করে যথাশক্তি দ্রুতপদেই বাসায় ফিরছেন। সম্ভবত এরা বাতব্যাধিগ্রস্ত, সন্ধ্যার পূর্বেই এদের ঘরে প্রবেশ করা প্রয়ােজন। তাদের চলন দেখে ভরসা হলাে, ভাবলাম যাই, আমিও একটু ঘুরে আসিগে। সেদিন পথে পথে অনেক | বেড়ালাম। অন্ধকার হয়ে এলাে, ভেবেছিলাম আমি একাকী, হঠাৎ পেছনে চেয়ে দেখি একটি কুকুর আমার পেছনে চলেছে। বললাম, কী রে, যাবি আমার সঙ্গে? অন্ধকার পথটায় বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দিতে পারবি? সে দূরে দাঁড়িয়ে ল্যাজ নাড়তে লাগল। বুঝলাম সে রাজি আছে। বললাম, তবে আয় আমার সঙ্গে।

পথের ধারের একটা আলােতে দেখতে পেলাম কুকুরটার বয়স হয়েছে; কিন্তু যৌবনে একদিন শক্তিসামর্থ্য ছিল। তাকে অনেক কিছু প্রশ্ন করতে করতে বাড়ির সম্মুখে এসে পৌছলাম। গেট খুলে দিয়ে ডাকলাম, ভেতরে আয়। আজ তুই আমার অতিথি। সে বাইরে দাঁড়িয়ে ল্যাজ নাড়তে লাগল, কিছুতে ভিতরে ঢােকার ভরসা পেল না। আলাে নিয়ে চাকর এসে উপস্থিত হলাে, গেট বন্ধ করে দিতে চাইলে, বললাম, না, খােলাই থাক। যদি আসে, ওকে খেতে দিস। ঘণ্টাখানেক পরে খোঁজ নিয়ে জানলাম সে আসে নি কোথায় চলে গেছে।

পরদিন সকালে বাইরে এসেই দেখি গেটের বাইরে দাঁড়িয়ে আমার সেই কালকের অতিথি। বললাম, কাল তােকে খেতে নেমন্তন্ন করলাম, এলিনে কেন?জবাবে সে মুখপানে চেয়ে তেমনি ল্যাজ নাড়তে লাগল। বললাম, আজ তুই খেয়ে যাবি,- না খেয়ে যাসনে বুঝলি? প্রত্যুত্তরে সে শুধু ঘন ঘন ল্যাজ নাড়লে অর্থ বােধ হয় এই যে, সত্যি বলছাে তাে?

রাত্রে চাকর এসে জানালে সেই কুকুরটা এসে আজ বাইরের বারান্দার নিচে উঠানে বসে আছে। বামুনঠাকুরকে ডেকে বলে দিলাম, ও আমার অতিথি, ওকে পেট ভরে খেতে দিও।পরের দিন খবর পেলাম অতিথি যায় নি। আতিথ্যের মর্যাদা লঙ্ঘন করে সে আরামে নিশ্চিন্ত হয়ে বসে আছে। বললাম, তা হােক, ওকে তােমরা খেতে দিও।

আমি জানতাম, প্রত্যহ খাবার তাে অনেক ফেলা যায়, এতে কারও আপত্তি হবে না। কিন্তু আপত্তি ছিল এবং অত্যন্ত গুরুতর আপত্তি। আমাদের বাড়তি খাবারের যে প্রবল অংশীদার ছিল এ বাগানের মালির মালিনী। এ আমি জানতাম না। তার বয়স কম, দেখতে ভালাে এবং খাওয়া সম্বন্ধে নির্বিকারচিত্ত। চাকরদের দরদ তার পরেই বেশি। অতএব, আমার অতিথি করে উপবাস। বিকালে পথের ধারে গিয়ে বসি, দেখি অতিথি আগে থেকেই বসে আছে ধুলােয়।

বেড়াতে বার হলে সে হয় পথের সঙ্গী; জিজ্ঞাসা করি, হ্যা অতিথি, আজ মাংস রান্নাটা কেমন হয়েছিল রে? হাড়গুলাে চিবােতে লাগল কেমন? সে জবাব দেয় ল্যাজ নেড়ে, মনে করি মাংসটা তা হলে ওর ভালােই লেগেছে। জানিনে যে মালির বউ তারে মেরেধরে বার করে দিয়েছে বাগানের মধ্যে ঢুকতে দেয় না, তাই ও সুমুখের পথের ধারে বসে কাটায়। আমার চাকরদেরও তাতে সায় ছিল।

হঠাৎ শরীরটা খারাপ হলাে, দিন-দুই নিচে নামতে পারলাম না। দুপুরবেলা উপরের ঘরে বিছানায় শুয়ে, খবরের কাগজটা যেইমাত্র পড়া হয়ে গেছে, জানালার মধ্য দিয়ে বাইরের রৌদ্রতপ্ত নীল আকাশের পানে চেয়ে অন্যমনস্ক হয়ে ভাবছিলাম। সহসা খােলা দোর দিয়ে সিঁড়ির উপর ছায়া পড়ল কুকুরের। মুখ বাড়িয়ে দেখি অতিথি দাড়িয়ে ল্যাজ নাড়ছে।

দুপুরবেলা চাকরেরা সব ঘুমিয়েছে, ঘর তাদের বন্ধ, এই সুযােগে লুকিয়ে সে একেবারে আমার ঘরের সামনে এসে হাজির। ভাবলাম, দুদিন দেখতে পায় নি, তাই বুঝি আমাকে ও দেখতে এসেছে। ডাকলাম, আয় অতিথি, ঘরে আয়। সে এলাে না, সেখানে দাঁড়িয়েই ল্যাজ নাড়তে লাগল। জিজ্ঞাসা করলাম খাওয়া হয়েছে তাে রে? কী খেলি আজ?

হঠাৎ মনে হলাে ওর চোখ দুটো যেন ভিজেভিজে, যেন গােপনে আমার কাছে কী একটা নালিশ ও জানাতে | চায়। চাকরদের হাঁক দিলাম, ওদের দোর খােলার শব্দেই অতিথি ছুটে পালাল। জিজ্ঞাসা করলাম, হ্যা রে, কুকুরটাকে আজ খেতে দিয়েছিস? আজ্ঞে না। মালি-বৌ ওরে তাড়িয়ে দিয়েছে যে। আজ তাে অনেক খাবার বেঁচেছে, সে সব হলাে কী? মালি-বৌ চেঁচেপুঁচে নিয়ে গেছে।

আমার অতিথিকে ডেকে আনা হলাে, আবার সে বারান্দার নিচে উঠানের ধুলােয় পরম নিশ্চিন্তে স্থান করে নিল। মালি-বৌয়ের ভয়টা তার গেছে। বেলা যায়, বিকাল হলে উপরের বারান্দা থেকে দেখি অতিথি এই দিকে চেয়ে প্রস্তুত হয়ে দাঁড়িয়ে। বেড়াতে যাবার সময় হলাে যে।

শরীর সারলাে না, দেওঘর থেকে বিদায় নেবার দিন এসে পড়ল। তবু দিন-দুই দেরি করলাম নানা ছলে। আজ সকাল থেকে জিনিস বাঁধাবাঁধি শুরু হলাে, দুপুরে ট্রেন। গেটের বাইরে সার সার গাড়ি এসে দাঁড়াল, মালপত্র বােঝাই দেওয়া চলল। অতিথি মহাব্যস্ত, কুলিদের সঙ্গে ক্রমাগত ছুটোছুটি করে খবরদারি করতে | লাগল, কোথাও যেন কিছু খােয়া না যায়। তার উৎসাহই সবচেয়ে বেশি।

একে একে গাড়িগুলাে ছেড়ে দিলে, আমার গাড়িটাও চলতে শুরু করল। স্টেশন দূরে নয়, সেখানে পৌছে নামতে। গিয়ে দেখি অতিথি দাঁড়িয়ে। কিরে, এখানেও এসেছিস? সে ল্যাজ নেড়ে তার জবাব দিলে,কি জানি মানে তার কী!

টিকিট কেনা হলাে, মালপত্র তােলা হলাে, ট্রেন ছাড়তে আর এক মিনিট দেরি। সঙ্গে যারা তুলে দিতে এসেছিল | তারা বকশিশ পেল সবাই, পেল না কেবল অতিথি। গরম বাতাসে ধুলাে উড়িয়ে সামনেটা আচ্ছন্ন করেছে, যাবার আগে তারই মধ্য দিয়ে ঝাপসা দেখতে পেলাম স্টেশনের ফটকের বাইরে দাঁড়িয়ে একদৃষ্টে চেয়ে আছে অতিথি।

ট্রেন ছেড়ে দিলে, বাড়ি ফিরে যাবার আগ্রহ মনের মধ্যে কোথাও খুঁজে পেলাম না। হয়ত, ওর চেয়ে তুচ্ছ জীব শহরে আর নেই! কেবলই মনে হতে লাগল, অতিথি আজ ফিরে গিয়ে দেখবে বাড়ির লােহার গেট বন্ধ, ঢােকবার জো নেই! পথে দাঁড়িয়ে দিন-দুই তার কাটবে, হয়ত নিস্তব্ধ মধ্যাহ্নের কোন ফাঁকে লুকিয়ে উপরে উঠে খুঁজে দেখবে আমার ঘরটা।

অতিথির স্মৃতি MCQ অধ্যায় ভিত্তিক

এখানে অতিথির স্মৃতি mcq প্রশ্ন দেওয়া আছে। বইয়ের বহুনির্বাচনি প্রশ্নের পাশা-পাশী অতিরিক্ত কিছু mcq দিয়েছি। তাই এগুলো পড়ে নিবেন। প্রশ্ন গুলো অনুশীলন করার মাধ্যমে বোর্ড প্রশ্নের mcq সম্পর্কে ধারনা পেয়ে যাবেন।

১. অন্ধকার পথে চলার সময় লেখকের সঙ্গী হয়েছিল কে?
ক) একজন বৃন্ধ
খ) একটি কুকুর
গ) একজন চাকর
ঘ) একটি বিড়াল
উত্তর: খ

২. রাত্রিবেলা ভজনের শব্দে ঘুম ভেঙে গেলে লেখক কোথায় এসে বসেন?
ক) জানালায়
খ) বাগানে
গ) দরজায়
ঘ) বারান্দায়
উত্তর: ঘ

৩. শরৎচন্দ্র রেঙ্গুন যান কেন? (অনুধাবন)
ক চিকিৎসার জন্য
খ জীবিকার সন্ধানে
গ পড়াশোনার উদ্দেশ্যে
ঘ বসবাসের উদ্দেশ্যে

উত্তরঃ খ

৪. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কোন গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন? (জ্ঞান)
খ দেবানন্দপুর
খ চুরুলিয়া
গ মুরাতিপুর
ঘ দুমকা

৫. লেখকের পিছু নিয়েছিল কে? (জ্ঞান)
ক একটি পাখি
খ একটি মানুষ
গ একটি বিড়াল
ঘ একটি কুকুর

উত্তরঃ ঘ

৬. ‘কুঞ্জ’ শব্দের অর্থ কী?
ক) অরণ্য
খ) জঙ্গল
গ) মহাবন
ঘ) উপবন
উত্তর: ঘ

৭. লেখকের দেখা দরিদ্র ঘরের মেয়েটির ছেলেমেয়ে কয়জন?
ক) দুজন
খ) তিনজন
গ) চারজন
ঘ) পাঁচজন
উত্তর: খ

৮. বেনে-বৌ পাখি দুটি কয়দিন পর ফিরে এসেছিল? (জ্ঞান)
ক দুই
খ  তিন
গ চার
ঘ পাঁচ

উত্তরঃ খ

৯. ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে কোন গাছটি পথের ধারে ছিল? (জ্ঞান)
ক অশ্বত্থ
খ ইউক্যালিপটাস
গ জারুল
ঘ আমগাছ

উত্তরঃ ক

১০. লেখক কোন সময়ের ট্রেনে দেওঘর ছাড়লেন?
ক) সকালের
খ) দুপুরের
গ) বিকালের
ঘ) রাতের
উত্তর: খ

১১. সাধারণ বাঙালি পাঠকের কোন বিষয়টি শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় যথাযথভাবে উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন? (জ্ঞান)
ক আবেগ
খ রাজনৈতিক ভাবনা
গ সাহিত্যচিন্তা
ঘ প্রতিশোধপ্রবণতা

উত্তরঃ ক

১২. ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে কোন পাখিটি সবচেয়ে ভোরে ওঠে? (জ্ঞান)
ক শালিক
কখ দোয়েল
গ শ্যামা
ঘ বুলবুলি

উত্তরঃ খ

১৩. কার প্রতি চাকরদের দরদ বেশি?
ক) মালিনী
খ) মালী
গ) অতিথি
ঘ) বামুনঠাকুর
উত্তর: ক

১৪. লেখক বায়ু পরিবর্তনের জন্য কোথায় গিয়েছিলেন?
ক) রাঁচী
খ) দেওঘর
গ) কাশী
ঘ) শিলং
উত্তর: খ

অতিথির স্মৃতি গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন

এখানে অতিথির স্মৃতি গল্পের সৃজনশীল প্রশ্ন দেওয়া আছে। এগুলো আপনারা পরীক্ষার জন্য অনুশীলন করতে পারেন। প্রথমে আপনারা নিজে নিজে সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর করার চেষ্টা করবেন। তারপর যদি না পারেন নিচে দেওয়া উত্তর টি দেখেনিন।

সৃজনশীল প্রশ্ন ১ : মহেশ দরিদ্র বর্গাচাষি গফুরের অতি আদরের একমাত্র ষাঁড়। কিন্তু দারিদ্রের কারণে ওকে ঠিকমতো খড়-বিচুলি খেতে দিতে পাওে না। জমিদারের কাছে সামান্য খড় ধার চেয়েও পায় না। নিজে না খেয়ে থাকলেও গফুরের দুঃখ নেই। কিন্তু মহেশকে খাবার দিতে না পেরে তার বুক ফেটে যায়। সে মহেশের গলা জড়িয়ে ধরে কাঁদতে কাঁদতে বলে – মহেশ, তুই আমার ছেলে। তুই আমাদের আট সন প্রতিপালন করে বুড়ো হয়েছিস। তোকে আমি পেট পুরে খেতে দিতে পারি নে কিন্তু তুই জানিস আমি তোকে কত ভালোবাসি। মহেশ প্রত্যুত্তরে গলা বাড়িয়ে আরামে চোখ বুজে থাকে।

ক. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের দেওঘরে যাওয়ার কারণ কী ?
খ. অতিথি কিছুতে ভিতরে ঢোকার ভরসা পেল না কেন ? ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দীপকে মহেশের প্রতি গফুরের আচরণে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের যে দিকটি প্রকাশ পেয়েছে তা ব্যাখ্যা কর।
ঘ. উদ্দীপকের গফুরের সাথে লেখকের চেতনাগত মিল থাকলেও প্রেক্ষাপট ভিন্ন – ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের আলোকে মন্তব্যটির যথার্থতা বিচার কর।

সৃজনশীল প্রশ্ন ২ :

পাঁচ বছরের নীলের জন্য তার বাবা শহর থেকে খাঁচাসহ টিয়া পাখি কিনে আনে। বাবার সাথে নীলও পাখিটার যত্ন নেয়। নীলের সাথে টিয়েটাও নীলের বাবাকে বাবা বলে ডাকে। পাখিটা পোষ মেনেছে ভেবে একদিন চুপি চুপি খাঁচার দরজা খুলে দেয়। অমনি পাখিটা উড়ে চলে যায়। পাখিটার জন্য বাড়ির সবার মন খারাপ হয়। পরদিন সকালে পাখিটা ফিরে এসে বাবা, বাবা ডাকতে থাকলে সবাই অবাক হয়ে যায়। নীলের বাবা ভাবে, তার হারিয়ে যাওয়া ছেলে ফিরে এসেছে।

ক. ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে লেখকের কীসের ভাবনা ছিল?
খ. অতিথি প্রথম দিন বাড়ির ভিতরে ঢোকার ভরসা পেল না কেন? ব্যাখ্যা কর।
গ. উদ্দীপকে পাখিটার ফিরে আসা ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পে কোন বিষয়টিকে নির্দেশ করে তা ব্যাখ্যা কর।
ঘ. নীলের বাবাকে ‘অতিথির স্মৃতি’ গল্পের লেখকের প্রতিনিধি বলা যায় কি? উত্তরের সপক্ষে তোমার মতামত দাও।

শেষ কথা

আশা করছি এই পোস্ট টি আপনাদের অনেক ভালোলেগেছে। আজকের মতো এখানেই শেষ। এই পোস্ট টি ভালোলেগে থাকলে শেয়ার করতে পারেন। আশা করছি এই পোস্ট থেকে অতিথির স্মৃতি গল্প টি পিডিএফ সংগ্রহ করতে পেরেছেন। এই রকম আরও ভালো ভালো পোস্ট পেতে আমাদের সাথেই থাকবেন।  আজকের মতো এখানেই শেষ। ভালোথাকবেন, সুস্থ থাকবেন। আমাদের সাথে শেষ পর্যন্ত থাকার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

See More:

ফুলের বিবাহ- বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। বাংলা ১ম পত্র পিডিএফ

সুভা গল্প এস এস সি বাংলা ১ম পত্র গদ্য- পিডিএফ সংগ্রহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *