সেই অস্ত্র কবিতা, কবিতার ব্যাখ্যা ও মূলভাব বাংলা ১ম পত্র

সেই অস্ত্র কবিতা সম্পর্কে জানতে আজকের পোস্ট টি পড়ুন। কবিতাটি লিখেছেন আহসান হাবিব। কবিতাটি সকল মানুষের কাছে অনেক জনপ্রিয়। সেই অস্ত্র আহসান হাবিরের বিদীর্ণ দর্পণে মুখ কাব্যগ্রন্থ থেকে নেওয়া হয়েছে। কবিতাটির বিশেষ গঠনগত বিশেষত্ব হলো, এর অনাড়ম্বর সহজ গতিময়তা। নিচে আপনাদের জন্য সম্পূর্ণ কবিতাটি দেওয়া আছে। যারা যারা পড়তে চান নিচের দিকে চলে যান।

সেই অস্ত্র কবিতা

আহসান হাবিবের লিখিত কবিতাটি সম্পূর্ণ দেওয়া আছে এখানে। কবিতাটি এইচ এস সি বাংলা ১ম পত্রের অংশ থেকে দেওয়া আছে। সেই অস্ত্র কবিতার mcq প্রশ্ন ও উত্তর এবনহ সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর গুলো আমাদের আগের পোস্টে দেওয়া আছে। সেগুলো পড়ে নিতে পারেন। সৃজনশীল প্রশ্ন ও mcq প্রশ্নের উত্তর গুলো নিচের লিঙ্কে দেওয়া আছে।

সেই অস্ত্র –
আহসান হাবীব

আমাকে সেই অস্ত্র ফিরিয়ে দাও
সভ্যতার সেই প্রতিশ্রুতি
সেই অমোঘ অনন্য অস্ত্র
আমাকে ফিরিয়ে দাও।

সেই অস্ত্র আমাকে ফিরিয়ে দাও
যে অস্ত্র উত্তোলিত হলে
পৃথিবীর যাবতীয় অস্ত্র হবে আনত
যে অস্ত্র উত্তোলিত হলে
অরণ্য হবে আরও সবুজ
নদী আরও কল্লোলিত
পাখিরা নীড়ে ঘুমোবে।

যে অস্ত্র উত্তোলিত হলে
ফসলের মাঠে আগুন জ্বলবে না
খাঁ খাঁ করবে না গৃহস্থালি।

সেই অস্ত্র আমাকের ফিরিয়ে দাও
যে অস্ত্র ব্যাপ্ত হলে
নক্ষত্রখচিত আকাশ থেকে আগুন ঝরবে না
মানব বসতির বুকে
মুহূর্তের অগ্ন্যুৎপাত
লক্ষ লক্ষ মানুষকে করবে না পঙ্গু-বিকৃত
আমাদের চেতনা জুড়ে তারা করবে না আর্তনাদ
সেই অস্ত্র যে অস্ত্র উত্তোলিত হলে
বার বার বিধ্বস্ত হবে না ট্রয়নগরী।

আমি সেই অবিনাশী অস্ত্রের প্রত্যাশী
যে ঘৃণা বিদ্বেষ অহংকার
এবং জাত্যভিমানকে করে বার বার পরাজিত।

যে অস্ত্র আধিপত্যের লোভকে করে নিশ্চিহ্ন
যে অস্ত্র মানুষকে বিচ্ছিন্ন করে না
করে সমাবিষ্ট
সেই অমোঘ অস্ত্র-ভালোবাসা
পৃথিবীতে ব্যাপ্ত করো।

সেই অস্ত্র কবিতার মূলভাব

কবিতার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে সকল মানুষের মধ্যে ভালোবাসা বজায় রাখা। আমাদের এই পৃথিবীতে ভালোবাসার মতো এত সৌন্দর্য যুক্ত আর কিছু নেই ।  আর তাই, আহসান হাবিব তার ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় ভালোবাসা নামের মহান অস্ত্রকে এ-সমাজে ফিরে পাবার গভীর প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন। ‘ভালোবাসা’ কেবল একটি শব্দ নয়।  আর এ- কারণে কবি বিশ্বের মানুষের কাছে ভালোবাসা নামের অস্ত্র ফিরিয়ে দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন। পৃথিবীতে শান্তিময় করতে  হিংসা লোভ ঈর্ষা থেকে মানুষকে দূরে থাকতে হবে। তা হলে পৃথিবী এগিয়ে যাবে শান্তি ও সমৃদ্ধির দিকে।বিদ্বেষের বিষবাষ্পকে অপসারণ করতে ভালোবাসা নামক অস্ত্রের বিকল্প নেই ।

সেই অস্ত্র কবিতার জ্ঞানমূলক প্রশ্ন

১. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় ভালোবাসার অস্ত্র ফিরিয়ে দেওয়া হলে পৃথিবীর যাবতীয় অস্ত্র কী হবে?
উত্তর: ভালোবাসার অস্ত্র ফিরিয়ে দেওয়া হলে পৃথিবীর যাবতীয় অস্ত্র আনত হবে।

২. কবির অস্ত্র ব্যাপ্ত হলে নক্ষত্রখচিত আকাশ থেকে কী ঝরবে না?
উত্তর: কবির অস্ত্র ব্যাপ্ত হলে নক্ষত্রখচিত আকাশ থেকে আগুন ঝরবে না।

৩. আহসান হাবীব কত সালে জন্মগ্রহণ করেন?
উত্তর: আহসান হাবীব ১৯১৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন।

৪. কবি আহসান হাবীব কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?
উত্তর : আহসান হাবীব পিরোজপুরের শংকরপাশা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

৫. সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে কোথায় আগুন জ্বলবে না?
উত্তর : সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে ফসলের মাঠে আগুন জ্বলবে না।

৬. আহসান হাবীব ১৯৬৪ সালে কোন পত্রিকায় যোগ দেন?
উত্তর: আহসান হাবীব ১৯৬৪ সালে ‘দৈনিক বাংলা’ পত্রিকায় যোগ দেন।

৭. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কে অবিনাশী অস্ত্রের প্রত্যাশী?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কবি আহসান হাবীব অবিনাশী অস্ত্রের প্রত্যাশী।

৮. ভালোবাসার অস্ত্র উত্তোলিত হলে অরণ্য কেমন হবে?
উত্তর: ভালোবাসার অস্ত্র উত্তোলিত হলে অরণ্য আরও সবুজ হবে।

৯. আহসান হাবীব কত সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পান?
উত্তর: আহসান হাবীব ১৯৬১ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পান।

১০. জাত্যভিমানকে বার বার পরাজিত করতে কী প্রয়োজন?
উত্তর: জাত্যভিমান বার বার পরাজিত করতে ভালোবাসা প্রয়োজন।

১১. ‘অমোঘ অনন্য অস্ত্র’ কী?
উত্তর: অমোঘ অনন্য অস্ত্র হলো ভালোবাসা।

১২. ‘অমোঘ’ শব্দের অর্থ কী?
উত্তর: ‘অমোঘ’ শব্দের অর্থ – অবশ্যম্ভাবী বা সার্থক।

আরও দেখুন 

সেই অস্ত্র কবিতার সৃজনশীল প্রশ্ন

এই কবিতার অনেক গুলো সৃজনশীল প্রশ্ন রয়েছে। আমাদের আগের পোস্টে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর শেয়ার করেছি। এখানে আপনাদের জন্য কিছু সৃজনশীল প্রশ্ন উত্তর সংগ্রহ করে দিয়েছে। আপনারা এগুলো পড়েনিবেন। নিচে থেকে প্রশ্ন গুলো দেখেনিন।

‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কবি ভালোবাসাকে সভ্যতার প্রতিশ্র“ত অস্ত্র ও সৌন্দর্য সৃষ্টির একমাত্র অস্ত্র হিসেবে উপস্থাপন করেছেন। এ অস্ত্র করায়ত্ত করতে পারলেই কবি পৃথিবীর যাবতীয় সমস্যার সমাধান করতে পারবেন। পৃথিবীতে যত অন্যায়, নিপীড়ন সব হচ্ছে ভালোবাসাহীন নিষ্ঠুরতার ফলাফল। যদি ভালোবাসা জাগিয়ে তোলা যায়, তবে জাগবে মানবতা, জাগবে সৌন্দর্য, যা উদ্দীপক ও ‘সেই অস্ত্র’ কবিতার কবিদ্বয়ের কণ্ঠে সমানভাবে প্রকাশ পেয়েছে। অর্থাৎ, দুজনেই একই মানসিকতার ধারক।
নিচের উদ্দীপকটি পড় এবং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও।
গ্রিক এবং ট্রয় নগরীর যুদ্ধ-ইতিহাসের কলঙ্কিত অধ্যায়। ট্রয় নগরীর প্রতি ইঞ্চি মাটিতে মিশে আছে লাখ সৈনিকের রক্ত, অসংখ্য আহত ঘোড়ার হাহাকার, অগণিত মায়ের পুত্র শোকের আর্তনাদ আর জাতি-বিদ্বেষের পরিণাম।

ক. জাত্যাভিমানকে বার বার পরাজিত করতে কী প্রয়োজন?
খ. “বার বার বিধ্বস্ত হবে না ট্রয় নগরী”Ñ বলতে কী বোঝানো হয়েছে?
গ. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় ট্রয় নগরীর ধ্বংসের ইতিহাসের যে ইঙ্গিত রয়েছে তার সাথে উদ্দীপকের সাদৃশ্য দেখাও।
ঘ. “আমাদের হিংস্র মানসিকতাই ট্রয়ের ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ঘটাচ্ছে প্রতিনিয়ত”Ñ উক্তিটি উদ্দীপক ও ‘সেই অস্ত্র’ কবিতার আলোকে বিচার কর।

উত্তর দেখুন 

সেই অস্ত্র কবিতা পিডিএফ ডাউনলোড

নিচে কবিতাটি পিডিএফ ফাইলে দেওয়া আছে। আপনারা এটি পিডিএফ সংগ্রহ করতে পারবেন। কবিতাটি পিডিএফ ডাউনলোড করতে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন। এই লিঙ্কে পিডিএফ ফাইলে সংগ্রহ করার জন্য কবিতাটি দেওয়া আছে। তো যাদের পিদিএফ ফাইল প্রয়োজন হবে তারা সাওংরহ করেনিবেন।

পিডিএফ ডাউনলোড 

শেষ কথা

আমাদের সাথে শেষ পর্যন্ত থাকার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।  আশা করছি এই পোস্ট থেকে সেই অস্ত্র কবিতা সংগ্রহ করতে পেরেছেন এবং এর মূলভাব টি বুঝতে পেরেছেন। এই রকম আরও ভালো ভালো পোস্ট পেতে আমাদের সাথেই থাকবেন। নিচে আপনাদের জন্য শিক্ষামূলক কিছু পোস্ট দেওয়া আছে দেখেনিতে পারেন। ভালোথাকবেন, সুস্থ থাকবেন। ধন্যবাদ।

See More:

সেই অস্ত্র কবিতার জ্ঞানমূলক প্রশ্ন ও উত্তর পিডিএফ ডাউনলোড

সেই অস্ত্র কবিতার mcq প্রশ্নের উত্তর পিডিএফ ডাউনলোড

তাহারেই পড়ে মনে কবিতা এইচ এস সি- পিডিএফ ডাউনলোড

সেই অস্ত্র কবিতার mcq প্রশ্নের উত্তর পিডিএফ ডাউনলোড

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *